নারায়ণগঞ্জে জেনারেটর বিস্ফোরণ, দগ্ধ দুই ভাইয়ের মৃত্যু

বার্তাজগৎ২৪/কেএইচ
বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক: বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:
প্রকাশিত: ৩:১৭ অপরাহ্ন, ১২ মে ২০২২ | আপডেট: ১০:৪৪ অপরাহ্ন, ২৭ মে ২০২২
বার্তাজগৎ২৪

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে জেনারেটর বিস্ফোরণে দুই ভাই মারা গেছেন। শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিওতে) চিকিৎসাধীন অবস্হায় তারা মারা যান।

নিহতরা হলেন-শামীম মিয়া (৩০) ও ভাই নাজমুল মিয়া (১৮)। এ বিস্ফোরণে ঘটনায় আরেকজন দগ্ধ মো. বাশার (২৮) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

গত রোববার (৮ মে) সন্ধ্যা ৬টার দিকে আড়াইহাজারের ফ্রেশ স্টিল অ্যান্ড রি-রোলিং মিলে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে তিন শ্রমিক দগ্ধ হন। পরে তাদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।

নিহতের বোন কারিমা আক্তার গণমাধ্যমকে জানান, বুধবার (১১ মে) রাত সাড়ে ১১টার দিকে বার্ন ইনস্টিটিউটের আইসিইউতে নাজমুল মিয়ার মৃত্যু হয়। বৃহস্পতিবার (১২ মে) সকালে মারা যান বড় ভাই শামীম মিয়া।

তিনি আরও জানান, তারা নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানার চামুরকান্দি গ্রামের আব্দুল করিমের ছেলে।

নিহতদের সহকর্মী শামীম আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, কারখানায় কাজ করার সময় বিদ্যুতের লাইন স্পার্কের কারণে জেনারেটর বিস্ফোরিত হয়। এতে শামীম, নাজমুল ও বাসার দগ্ধ হন। পরে দগ্ধ অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসা হয়।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. আইউব হোসেন দুই ভাইয়ের মৃত্যুর বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করে বলেন, নাজমুল মিয়ার শরীরের ৬১ শতাংশ ও শামীম মিয়ার ৪৮ শতাংশ দগ্ধ ছিল।

এ ছাড়া চিকিৎসাধীন বাসারের শরীরের ৩০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তার অবস্থাও আশঙ্কাজনক। তাদের সবার শরীরে ইলেকট্রিক বার্ন ছিল। ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে জেনারেটর বিস্ফোরণে দুই ভাই মারা গেছেন। শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিওতে) চিকিৎসাধীন অবস্হায় তারা মারা যান।

নিহতরা হলেন-শামীম মিয়া (৩০) ও ভাই নাজমুল মিয়া (১৮)। এ বিস্ফোরণে ঘটনায় আরেকজন দগ্ধ মো. বাশার (২৮) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

গত রোববার (৮ মে) সন্ধ্যা ৬টার দিকে আড়াইহাজারের ফ্রেশ স্টিল অ্যান্ড রি-রোলিং মিলে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে তিন শ্রমিক দগ্ধ হন। পরে তাদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।

নিহতের বোন কারিমা আক্তার গণমাধ্যমকে জানান, বুধবার (১১ মে) রাত সাড়ে ১১টার দিকে বার্ন ইনস্টিটিউটের আইসিইউতে নাজমুল মিয়ার মৃত্যু হয়। বৃহস্পতিবার (১২ মে) সকালে মারা যান বড় ভাই শামীম মিয়া।

তিনি আরও জানান, তারা নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানার চামুরকান্দি গ্রামের আব্দুল করিমের ছেলে।

নিহতদের সহকর্মী শামীম আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, কারখানায় কাজ করার সময় বিদ্যুতের লাইন স্পার্কের কারণে জেনারেটর বিস্ফোরিত হয়। এতে শামীম, নাজমুল ও বাসার দগ্ধ হন। পরে দগ্ধ অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসা হয়।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. আইউব হোসেন দুই ভাইয়ের মৃত্যুর বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করে বলেন, নাজমুল মিয়ার শরীরের ৬১ শতাংশ ও শামীম মিয়ার ৪৮ শতাংশ দগ্ধ ছিল।

এ ছাড়া চিকিৎসাধীন বাসারের শরীরের ৩০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তার অবস্থাও আশঙ্কাজনক। তাদের সবার শরীরে ইলেকট্রিক বার্ন ছিল। ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

বার্তাজগৎ২৪/কেএইচ