ঢাকার ক্যাসিনো গডফাদারদের নিয়ে তরুণ আ.লীগ নেতার বিস্ফোরক স্ট্যাটাস

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:

প্রকাশিতঃ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সময়ঃ সন্ধ্যা ৬ঃ৩২
ঢাকার ক্যাসিনো গডফাদারদের নিয়ে তরুণ আ.লীগ নেতার বিস্ফোরক স্ট্যাটাস
ঢাকার ক্যাসিনো গডফাদারদের নিয়ে তরুণ আ.লীগ নেতার বিস্ফোরক স্ট্যাটাস

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:

'বর্তমানে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের মানুষেরা এখন আর কেউ তেমন এদেশে রাজনীতি করেনা। এদেশে এখন রাজনীতি করে ক্ষমতালোভী, লুটপাটকারী ও ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির দালাল শ্রেণির মানুষেরা। যে যত বড় হিপোক্রেট সে তত বড় নেতা। আওয়ামী লীগ, কমিউনিস্ট, বিএনপি, জামাত, জাতীয় পার্টি, সরকারি আমলারা, বুদ্ধিজীবী শিক্ষকরা ও সাংবাদিকরা লোভের আগুনে আজ একই কাতারে চলে যাচ্ছে। বর্তমানে এমন কয়েকজন নেতাদের নাম বলেন যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ মেনে পুরোপুরি রাজনীতি করে? সবাই এখন শুধু দালালি করে রাজনীতি করে নিজের ভাগটা নেওয়ার ধান্ধায় থাকে। 

বঙ্গবন্ধুর নীতি যে শুধু অন্যায়ের বিপক্ষে দাড়িয়ে সাধারণ মানুষকে পক্ষে দাড়ানো সেই আদর্শ ভুলে গেছে। এদেশে সততার ও আদর্শের সাথে রাজনীতি করা মানুষগুলো হারিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বড় সংকট বঙ্গবন্ধুর আদর্শ কে বাঁচিয়ে রাখা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের মানুষ না থাকলে এদেশে সুষ্ঠু রাজনীতি থাকবে না। জননেত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া সবাইকেই সকাল বিকাল ক্রয়বিক্রয় করা যায়। তাই সবাই ক্ষমতা ও টাকার পিছনে সারাদিন প্রটোকল দিচ্ছে। এদেশের বেশিরভাগ 

রাজনৈতিক নেতাদের কর্মকাণ্ড বঙ্গবন্ধুর আদর্শের বাইরে খুনি জিয়া, খুনি মোস্তাক, এরশাদ, খালেদার লুটপাটতন্ত্রের কর্মকাণ্ডের সাথে মিলে যাচ্ছে। কিন্তু এভাবে একটা দেশ চলতে পারে না। এভাবে আর কতদিন?

ঢাকার সম্রাট, খালিদ, জিকে শামিম, ইরাক ও ইরানের মত সারাদেশে অনেকই সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে কোন কোন রাজনৈতিক নেতার শেল্টারে তাদের কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে। তারা রাতারাতি এদেশে গডফাদারের মত মাফিয়া স্টাইলে বিলাসী জীবন যাপন করে। অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের বা কলেজের ছাত্ররা নিজেদের জীবিকা নির্বাহের জন্য তাদের পিছে ঘুরতে বাধ্য হয়। ছাত্রসংগঠনের শীর্ষ পদধারী তাদের পায়ের কাছে গিয়ে বসে থাকতো (বর্তমানে বিদেশে আছেন)। এদেরকে যারা মাসোয়ারার বিনিময়ে রাজনৈতিক ও আইনী আশ্রয় দেয় তাদেরকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের দল আওয়ামী লীগ থেকে বের করে দিতে হবে। 

প্রশাসনের যেসব দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত আমলা রয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলার পরেও যদি এসব অস্ত্রধারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেন তাদেরকে শীঘ্রই চাকরিচ্যুত করতে হবে। আর যেসব গোয়েন্দা ও সাংবাদিকরা টাকার বিনিময়ে আজও এঁদের বিরুদ্ধে নিউজ করেনি তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে। যুবসমাজ ও ছাত্রসমাজকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের বাইরে বিলাসিতার রাজনীতি পরিবর্তন করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। বঙ্গবন্ধুর মত, তার কন্যার মত এদেশের মানুষকে ভালবাসার রাজনীতি ধারণ করতে হবে। আমরা স্বপ্ন দেখি এদেশে পরিবর্তন আসবেই, মানুষ মানুষকে ভালবাসবেই।'

'জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।'

মেহেদি হাসান রনি

সাবেক ছাত্রলীগ নেতা।

বার্তা‌জগৎ২৪.কম/এফ এইচ পি

Share on: