নীলফামারীতে বিকেল ৪টায় হয় রাত! সূর্যের আলো নেই দুই দিন

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক:

প্রকাশিতঃ ২২ জানুয়ারী ২০২০ সময়ঃ বিকেল ৫ঃ৩০
নীলফামারীতে বিকেল ৪টায় হয় রাত! সূর্যের আলো নেই দুই দিন
নীলফামারীতে বিকেল ৪টায় হয় রাত! সূর্যের আলো নেই দুই দিন

 বার্তাজগৎ২৪ ডেস্কঃ

নীলফামারীতে দুদিন ধরে সূর্যের দেখা মেলেনি। বিকেল ৪টা বাজলেই মনে হয় রাত। ঘন কুয়াশার সঙ্গে বয়ে যাচ্ছে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ। ঠান্ডা বাতাসে জবুথবু অবস্থা সেখানকার মানুষের। গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির মতো ঝরছে কুয়াশা। 

সৈয়দপুর বিমানবন্দর আবহাওয়া অফিসের সহকারী কর্মকর্তা মো. লোকমান হাকিম বলছেন, বৃহস্পতিবার নীলফামারীতে সর্বনিম্ন ৭ দশমিক ৪ ও সর্বোচ্চ ২১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

তিনি বলেন, বুধবার ছিল মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। বৃহস্পতিবার তাপমাত্রা কমে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহে রূপ নিয়েছে। এজন্য শীত জেঁকে বসেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন জেলার সর্বস্তরের মানুষ। আগামী ২৪ ঘণ্টায় এই আবহাওয়া অব্যাহত থাকতে পারে বলেও জানান তিনি।

এদিকে মাঝারি এই শৈত্যপ্রবাহে চরম দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে দিনাতিপাত করছেন তিস্তাপারের মানুষ। বিকেল ৪টা বাজলেই এখানে রাত শুরু হয়ে যায়। ঘন কুয়াশায় রাস্তাঘাট কিছুই দেখা যায় না। চারদিকে শুধুই অন্ধকার। এ অবস্থায় গবাদিপশু নিয়ে বিপাকে পড়েছেন স্থানীয়রা। গরু-ছাগলকে শীত থেকে রক্ষায় পাটের বস্তা জড়িয়ে রাখা হয়েছে। ঠান্ডায় জবুথবু হয়ে আছে ওসব গবাদিপশু।

এদিকে ঝুনাগাছা চাপানি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান বলেন, সরকারিভাবে প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেজবাহুর রহমান জানান, সরকারিভাবে ১০টি ইউনিয়নের ১ হাজার নিম্নআয়ের মানুষ ও ভিক্ষকদের একটি করে কম্বল এবং শুকনা খাবার দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা এসএ হায়াত বলছেন, নীলফামারীর ৬ উপজেলায় এখন পর্যন্ত সরকারিভাবে ৫৭ হাজার কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। তবে এখনও কম্বল বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।

বার্তাজগৎ২৪/সা/হ

Share on: