• মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১ , ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
  • আর্কাইভ

মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১ , ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

ভুয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি নিয়েছেন জনপ্রিয় শিল্পী মমতাজ

বার্তাজগৎ২৪ ডেস্ক
প্রকাশিত :মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৩, ২০২১, ০২:৫১

  • মমতাজের ডক্টরেট ডিগ্রি লাভের ছবি

    বাংলাদেশের বেশকিছু নামী সংবাদ মাধ্যমে জানা গেছে লোকগানের জনপ্রিয় শিল্পী মমতাজ ভারতের গ্লোবাল হিউম্যান পিস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করেছেন। এই সংবাদের পেছনের সঠিক তথ্য বেরিয়ে এসেছে বিডি ফ্যাক্টচেক নামে একটি অনলাইন পোর্টালের অনুসন্ধানে। 


    যেখানে জানা যায়, ভারতে গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটি নামে বৈধ কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নাই। এই নামে শুধু একটি ওয়েবসাইট আছে যারা টাকার বিনিময়ে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি দিয়ে থাকে যা ভারতের দ্যা ইউনিভার্সিটি গ্রান্টস কমিশন (ইউজিসি) অ্যাক্ট- ১৯৫৬ অনুযায়ী অবৈধ। 

    কন্ঠশিল্পী মমতাজের সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি প্রাপ্তি নিয়ে প্রথম আলো, বাংলা ট্রিবিউন, ইত্তেফাকসহ বেশ কিছু সংবাদ মাধ্যমে গতকাল সংবাদ প্রকাশিত হয়। সবকয়টি সংবাদ মাধ্যমে মোটামুটি একই বক্তব্য এসেছে।

    বক্তব্যটি হলো, 'আওয়ামী লীগের সাংসদ ও কণ্ঠশিল্পী মমতাজ শনিবার (১০ এপ্রিল) ভারতের তামিলনাড়ুর গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটি থেকে সম্মাননাসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি পেয়েছেন। বিশ্বের প্রথম শিল্পী হিসেবে ৭০০টির বেশি একক অ্যালবামের রেকর্ড ও সুদীর্ঘ ৩০ বছর বাংলা গানকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরা এবং সমাজসেবা ছাড়াও নানামুখী কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত রেখে নিজেকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন মমতাজ। যে কারণে ওই বিশ্ববিদ্যালয় বিশেষ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শনিবার ‘ডক্টর অব মিউজিক’ পদক প্রদান করে। বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান ড. পি. ম্যানুয়েল সম্মাননাটি দেন। এর ফলে এ শিল্পী প্রথমবারের মতো ডক্টরেট ডিগ্রি পেলেন।”

     কিন্তু ফ্যাক্টচেকের অনুসন্ধানে জানা যায়,

    ১। গ্লোবাল ‍হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটি কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ই নয়। ভারতের ইউজিসি অ্যাক্ট- ১৯৫৬ এর সেকশন ২২(১) অনুযায়ী কেন্দ্রীয় অথবা রাজ্য সরকার দ্বারা প্রতিষ্ঠিত কোনো বিশ্ববিদ্যালয় অথবা ইউজিসি অ্যাক্ট-১৯৫৬ এর ৩ এর অধীনে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয় অথবা সংসদীয় কোনো আইনের আওতায় প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানই শুধু ডিগ্রি প্রদান করতে পারবে। ইউজিসি অ্যাক্ট-১৯৫৬ এর সেকশন ২৩ এ বলা হয়েছে, উপরিউক্ত প্রতিষ্ঠানগুলো ছাড়া আর কেউ “বিশ্ববিদ্যালয়” শব্দটি ব্যবহার করতে পারবে না। গ্লোবাল ‍হিউম্যান পিস বিশ্ববিদ্যালয় ভারতের ইউজিসি অ্যাক্ট-১৯৫৬ অনুযায়ী কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ই নয়। তাই এটি কোনো ডিগ্রিও প্রদান করতে পারে না। 

    ২। এছাড়াও ভারতের ৯৭৯টি বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় নেই গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটির নাম। ভারতে মোট ৯৭৯টি বিশ্ববিদ্যালয় এর মধ্যে কেন্দ্র পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয় ৫৪টি, ভারতের বিভিন্ন রাজ্য পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয় ৪২৫টি, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় ৪২৫টি, এবং ইউজিসি অ্যাক্ট-১৯৫৬ এর তিন সেকশন অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গণ্য করা হয় আরো ১২৫টি প্রতিষ্ঠানকে। এর মধ্যে গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটির নাম নেই। 

    দেখুন পুরো তালিকাটি।

    ৩। গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটির নামে একটি ওয়েবসাইটের ডোমেইন নাম নিয়েও রয়েছে সমস্যা। গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটির নামে একটি ওয়েবসাইট (ghpuedu.org)  পাওয়া গেছে। বিশ্বের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটের ডোমেইন সাধারণত ডটএডু (.edu) দিয়ে শেষ হয়। কিন্তু এই বিশ্ববিদ্যালয়ের নামের শেষে রয়েছে ডটওআরজি (.org) যা কেবল বিভিন্ন সংস্থার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। ডোমেইন যাচাইকারী প্রতিষ্ঠান হুডটইজ (who.is)। সেটাতে দেখা গেছে, ghpuedu.org এই ডোমেইনটি নিবন্ধন করা হয় ২০১৯ সালের ৩ সেপ্টেম্বর। এই বছরের ৩ সেপ্টেম্বর সাইটটির মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। সাধারণত প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ডোমেইনের নিবন্ধন অনেক বছরের জন্য করা হয় অথচ এই ডোমেইনটি নতুন এবং মাত্র একবছরের জন্য নিবন্ধন করা হয়েছে।

    ৪। গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটির ওয়েবসাইট ঘেটে এর স্থায়ী ক্যাম্পাসের ঠিকানা পাওয়া যায়নি। তবে তাদের আঞ্চলিক কেন্দ্রের ঠিকানা দেওয়া আছে যে ঠিকানাগুলো গুগল ম্যাপে সার্চ করে ওই সম্পর্কিত কোনো কিছু তথ্য পাওয়া যায়নি। অর্থাৎ ঠিকানাগুলো ভূয়া। এছাড়া ইতালি, সৌদিআরব ও জার্মানিতে বিশ্ববিদ্যালয়টির আঞ্চলিক অফিসের কথা উল্লেখ করলে ওয়েবসাইটে কোনো লিংক কিংবা ঠিকানা দেয়া হয়নি।

     
     

    ৫। গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটির ওয়েবসাইট ঘেটে দেখা যায় সেখানে কোনো আন্ডারগ্রাজুয়েট ও গ্রাজুয়েট ডিগ্রি দেওয়া হয় না। শুধু কিছু অনলাইনভিত্তিক কোর্সের লিংক দেয়া আছে। আর সম্মানসূচক পিএইচডি ডিগ্রি দেয়া হয় অনেকগুলো বিষয়ে। কিন্তু বিশ্বে এমন কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নেই যেখানে আন্ডারগ্রাজুয়েট ও গ্রাজুয়েট ডিগ্রি না দিয়ে শুধু সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি দেয়া হয়। 

    ৬। গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটি’র ওয়েবসাইটে সম্মানসূচক পিএইচডি’র প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী পেইজে বলা হয়েছে, “To raise funds for charity and to cover research development expenses the details of which may be given in the university website.” অর্থাৎ চ্যারিটি কিংবা গবেষণা উন্নয়ন ব্যয়ের ফান্ড যোগাড় করার জন্য তারা সম্মানসূচক পিএইচডি ডিগ্রি প্রদান করে। 

    সম্মানসূচক পিএইচডি ডিগ্রি প্রদানের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কোনো প্রসেসিং ফি নেয় কিনা এর উত্তরে তারা লিখেছে, “Yes, this the university collects to cover the expenses of a public function and a wide press coverage for the awardees if it is conducted.” অর্থাৎ তারা অনুষ্ঠান এবং মিডিয়া কাভারেজের জন্য সম্মানসূচক পিএইচডি ডিগ্রি যাদেরকে দেয়া হয় তাদের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে থাকে। এছাড়া প্রশাসনিক ব্যয়, উদযাপন ব্যয় এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা বিভাগকে তহবিল সরবরাহের জন্য ফি প্রদান করতে হয়। যার অর্থ টাকার বিনিময়ে সম্মানসূচক ভূয়া ডক্টরেট ডিগ্রি দিয়ে থাকে বিশ্ববিদ্যালয়টি।

    গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটি ভারতের আইন অনুযায়ী একটি অবৈধ প্রতিষ্ঠান। ভারতে এই নামে কোনো বৈধ বিশ্ববিদ্যালয় নাই। এটি টাকার বিনিময়ে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদান করে থাকে।

    তথ্যসূত্র:


    https://ghpuedu.org

    who.is

    www.ugc.ac.in

    /

    • সর্বশেষ
    • সর্বাধিক পঠিত
    শনি
    রোব
    সোম
    মঙ্গল
    বুধ
    বৃহ
    শুক্র

    সম্পাদক: দিদারুল ইসলাম
    প্রকাশক: আজিজুর রহমান মোল্লা
    মোবাইল নাম্বার: 01711121726
    Email: bartajogot24@gmail.com & info@bartajogot24.com