• বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১ , ১ বৈশাখ ১৪২৮
  • আর্কাইভ

বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১ , ১ বৈশাখ ১৪২৮

অংকুর রায় অনিকের ছোটগল্প ব্যাকুলতা

সাইফুল ইসলাম:
প্রকাশিত : সোমবার, ০৮ ফেরুয়ারী, ২০২১, ১০:২৬

  • অংকুর রায় অনিকের ছোটগল্প ব্যাকুলতা

    সময় যেন নিস্তরঙ্গ মেঘের মতো ঠাঁই দাঁড়িয়ে আছে। চারপাশে ছুটে চলছে মানুষ। কারো যেন সময় নেই অন্যের দিকে তাকানোর। দুপুরের তীব্র রোদের উজ্জ্বলতা ছড়িয়ে পড়েছে চারিদিকে। তাপদাহে মানুষের শরীর থেকে দরদর করে ঘাম ঝরছে। ভিজে যাচ্ছে শরীরে আবৃত থাকা পোশাক। ছাতা মাথায় ধরে রাস্তার পাশে বসে আছে এক বৃদ্ধ ভিখারী। পথচারীর দয়া হলে কিছু টাকা-পয়সা পরছে তার থালাতে। কিছু লোককে দেখা যাচ্ছে বাদাম, বুট, আমড়া, শশা, আইসক্রিম, পানির বোতল নিয়ে ঘাসফড়িং এর মতো ঘুরে বেড়াচ্ছে এক বাস থেকে অন্য বাসে।


    কিছু কিছু ড্রাইভার গাড়ির হর্ন বাজিয়ে যাচ্ছে। হর্ণের শব্দ আর্তনাদ করছে কানের কাছে। এ যেন সময় মতো গন্তব্যে পৌঁছনোর আকুল আবেদন যা গাড়ির হর্ণ জানান দিচ্ছে।


    বাসে বসে থাকতে থাকতে ব্যাকুল হয়ে উঠছে প্রবীর এর হৃদয়। সারি সারি সৈনিকের মত দাঁড়িয়ে আছে একটির পরে একটি গাড়ি। বিশাল এ গাড়ির বহরের শেষ কোথায় তা জানা নেই প্রবীরের। তার ভেতরটা শুধু ছটফট করছে তার মাকে দেখার জন্য। তার মা হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে অপেক্ষা করছে মৃত্যুর জন্য আর সে বিশাল জ্যামের মধ্যে বসে অপেক্ষা করছে মায়ের কাছে পৌঁছানোর জন্য। হাসপাতাল থেকে একটু আগে তার স্ত্রী ফোন করে জানিয়েছে তার মায়ের অবস্থা বেগতিক।

    কয়েকদিন ধরে তার স্ত্রী সুনয়না রয়েছে তার মা এর কাছে। সে-ই হাসপাতালে প্রবীরের মায়ের সেবা যত্ন করছে। প্রবীরের মা যে বৃদ্ধ, তা নয়। খুব বেশি বয়স হয়নি তার কিন্তু তাকে গ্রাস করেছে জটিল সব রোগ।



    প্রবীর অফিসেই ছিল। তার স্ত্রীর এমন ফোন শুনে তাড়াতাড়ি অফিস থেকে বের হয়ে বাস ধরল। কিন্তু ভাগ্য আর সুপ্রসন্ন হল না। লম্বা জ্যামে বসে আছে দুই ঘন্টা যাবত। সে বাস থেকে নেমে হেঁটে সামনে গিয়ে বাস বদলও করেছে কয়েকটা তাতেও লাভ খুব একটা হয়নি।

    ভাগ্যও তার সাথে আজ পরিহাস করছে। যখনই সে নেমে হাঁটা শুরু করে তখনই দেখে জ্যাম ছেড়ে গেছে। বাসে উঠার দুই তিন মিনিটের মধ্যেই আবার জ্যাম শুরু।
    তার ব্যাকুলতা যেন বেড়েই চলেছে। মায়ের একমাত্র ছেলে সে, মায়ের মৃত্যুর সময় মা যদি তাকে পাশে না পায় তাহলে অনেক কষ্ট পাবে মা। শেষবারের মত কি একটি বার সে মায়ের সাথে কথা বলতে পারবে না? এটা ভেবেই তার বুক ফেঁটে কান্না আসছে। নিঃশব্দ অশ্রু মিশে যাচ্ছে মুখের উপরে লেপ্টে থাকা লবণাক্ত ঘামের সাথে।

    • সর্বশেষ
    • সর্বাধিক পঠিত
    শনি
    রোব
    সোম
    মঙ্গল
    বুধ
    বৃহ
    শুক্র

    সম্পাদক: দিদারুল ইসলাম
    প্রকাশক: আজিজুর রহমান মোল্লা
    মোবাইল নাম্বার: 01711121726
    Email: bartajogot24@gmail.com & info@bartajogot24.com