• মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১ , ১১ শ্রাবণ ১৪২৮
  • আর্কাইভ

মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১ , ১১ শ্রাবণ ১৪২৮

করোনার উচ্চ ঝুঁকিতে ৪৫টি জেলা

বার্তাজগৎ ২৪ ডেস্ক;
প্রকাশিত :সোমবার, জুন ১৪, ২০২১, ০২:০৩

করোনার উচ্চ ঝুঁকিতে ৪৫টি জেলা

গত এক সপ্তাহের হিসাব পর্যালোচনা করে দেখা যায়, দেশের ৪৫টি জেলা এখন করোনাভাইরাস সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে। এসব জেলায় শনাক্তের হার ১০ থেকে ৪০ শতাংশের মধ্যে থাকছে। উচ্চ সংক্রমিত জেলাগুলোকে স্বাস্থ্য বিভাগ 'এ', 'বি' ও 'সি' তিনটি ক্যাটাগরিতে ভাগ করেছে। 'এ' ক্যাটাগরির ১০ জেলায় শনাক্তের হার ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ। এর মধ্যে ন’টিই সীমান্তবর্তী জেলা


সীমান্তবর্তী ৩০ জেলার মধ্যে রাজশাহী বিভাগের সীমান্তবর্তী জেলাগুলো সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে। এ বিভাগের দুই জেলায় শনাক্তের হার ৪২ শতাংশের বেশি।

স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের মতে, করোনার ভারতীয় ধরন 'ডেলটা ভ্যারিয়েন্ট' শনাক্ত হওয়ার পর সীমান্তের জেলাগুলোতে প্রতিদিনই আক্রান্ত ও মৃত্যু বাড়ছে। ঈদে যাতায়াতের ফলে অন্য জেলাগুলোতেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। সীমান্তবর্তী কয়েকটি জেলায় রোগীর চাপ সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে হাসপাতালগুলো। শয্যা সংকটে রোগী ভর্তি করা সম্ভব হচ্ছে না কোনো কোনো হাসপাতালে। জেলা-উপজেলা শহরের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে।

করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে সীমান্তের সাত জেলায় গত মে মাসে লকডাউনের সুপারিশ করেছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জনস্বাস্থ্য ও রোগতত্ত্ববিদদের সমন্বয়ে গঠিত কমিটি। কিন্তু সাতক্ষীরা ছাড়া আর কোনো জেলায় এখনও লকডাউন দেওয়া হয়নি। এর বাইরে কয়েকটি ইউনিয়ন ও পৌরসভা পর্যায়ে লকডাউন ঘোষণা করেছে স্থানীয় প্রশাসন। তবে সুপারিশ না করলেও সংক্রমণ ও মৃত্যু বেড়ে যাওয়ায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় আগেই লকডাউন দেওয়া হয়।

খুলনা বিভাগের সীমান্ত সংলগ্ন ছয়টি জেলার মধ্যে শনাক্তের হার সাতক্ষীরায় সবচেয়ে বেশি- ৪৭ দশমিক ৫০। এরপর যশোরে শনাক্তের হার ৩২ দশমিক ৫৯, চুয়াডাঙ্গায় শনাক্তের হার ২৮ দশমিক ৪৯, ঝিনাইদহে শনাক্তের হার ১৭ দশমিক ৮৭, মেহেরপুরে শনাক্তের হার ১১ দশমিক ১৭ এবং কুষ্টিয়ায় শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৪৬ শতাংশ।

চট্টগ্রাম বিভাগের সীমান্তবর্তী ছয়টি জেলার মধ্যে একমাত্র চট্টগ্রামে শনাক্তের হার ১২ দশমিক ৫৬ শতাংশ। অন্য পাঁচ জেলায় শনাক্তের হার ১০ শতাংশের নিচে রয়েছে।

রংপুর বিভাগে সীমান্তবর্তী ছয়টি জেলার প্রতিটি জেলাই উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে। এর মধ্যে লালমনিরহাটে শনাক্তের হার ৩০ দশমিক ২৯ শতাংশ, কুড়িগ্রামে শনাক্তের হার ২৭ দশমিক ৯৬ শতাংশ, ঠাকুরগাঁও ও দিনাজপুরে শনাক্তের হার ২৫ শতাংশ করে, পঞ্চগড়ে শনাক্তের হার ১০ দশমিক ৯ শতাংশ এবং নীলফামারীতে শনাক্তের হার ১০ দশমিক ৭ শতাংশ।

ময়মনসিংহ বিভাগের সঙ্গে সীমান্তবর্তী চারটি জেলার মধ্যে জামালপুরে শনাক্তের হার ২১ দশমিক ১৬ শতাংশ এবং শেরপুর ১২ শতাংশ। তবে ময়মনসিংহে শনাক্তের হার ৭ শতাংশ ও নেত্রকোনায় ৭ দশমিক ৭৮ শতাংশ। 


সিলেটের সঙ্গে সীমান্ত চারটি জেলার মধ্যে দুটি ঝুঁকিতে রয়েছে। এর মধ্যে মৌলভীবাজারে শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৬৫ শতাংশ ও সিলেটে ১৫ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। এর বাইরে সুনামগঞ্জে শনাক্তের হার ৮ দশমিক ২৩ শতাংশ এবং হবিগঞ্জে শনাক্তের হার ৯ দশমিক ৩৮ শতাংশ।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়ার বাইরে উন্মুক্ত সীমান্ত দিয়ে গোপনে বাংলাদেশিদের ভারতে যাতায়াত বেড়েছে। ফলে সীমান্ত এলাকাসহ দেশের অভ্যন্তরে করোনার ভারতীয় ভেরিয়েন্টে সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা বেড়েই চলেছে। সংক্রমণ ঠেকাতে সীমান্ত এলাকায় বিজিবির টহল জোরদার করা হলেও পুলিশের পক্ষ থেকে অবৈধ প্রবেশকারীদের বিরুদ্ধে তেমন কোনো আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না বলেও অভিযোগ রয়েছে। অনেকের অভিযোগ, মাদক চোরাকারবারিদের অবাধ যাতায়াত ও মাদকপাচার কারবার আগের মতোই চলমান। ভারতীয় নাগরিকদের চলাচলও সীমান্ত এলাকায় বাড়াচ্ছে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি। সীমান্ত এলাকায় বিএসএফের কাছে আইডি কার্ড জমা দিয়ে বাংলাদেশে জমিতে কাজ করতে আসে। কাজেই সংক্রমণ ঠেকাতে বিধি-নিষেধ মেনে চলার পাশাপাশি সীমান্ত এলাকায় কঠোর নজরদারির কোনো বিকল্প নেই।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম গণমাধ্যমকে কে বলেছেন, ভারতের সঙ্গে সীমান্তবর্তী জেলাগুলো নিয়ে স্বাস্থ্য বিভাগ উদ্বিগ্ন। ওই জেলাগুলোতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকাদানের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে কার্যকর লকডাউন, সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার যে বিষয়গুলো রয়েছে, তা অধিকাংশ মানুষ মানছেন না। এটিই সংক্রমণ বৃদ্ধির আরেকটি কারণ। সুতরাং সবার প্রতি পরামর্শ- স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, মাস্ক ব্যবহার করুন।

/

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র

সম্পাদক: দিদারুল ইসলাম
প্রকাশক: আজিজুর রহমান মোল্লা
মোবাইল নাম্বার: 01711121726
Email: bartajogot24@gmail.com & info@bartajogot24.com