• মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১ , ১১ শ্রাবণ ১৪২৮
  • আর্কাইভ

মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১ , ১১ শ্রাবণ ১৪২৮

আজ ১১ জুলাই: 'বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস'।

অপূর্ব চক্রবর্তী, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ
প্রকাশিত :রবিবার, জুলাই ১১, ২০২১, ০৪:৩১

আজ ১১ জুলাই: 'বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস'।

"অধিকার ও পছন্দই মূল কথা: প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার প্রাধান্য পেলে কাঙ্ক্ষিত জন্মহারে সমাধান মেলে।" - করোনা মহামারীর চ্যালেঞ্জ মাথায় রেখেই এরূপ প্রতিপাদ্য নির্ধারিত হয়েছে।


 

 একটি দেশের সম্পদ হয় দেশের জনসংখ্যা কে।  কিন্তু অতিরিক্ত জনসংখ্যা কখনই সম্পদ নয় বরং সেই দেশের জন্যে বোঝা। ১৯৮৭ সালের ১১ জুলাই তারিখে বিশ্বের জনসংখ্যা প্রায় ৫০০ কোটি ছাড়িয়ে গেলে তখন সারা বিশ্বের জনমানুষের মধ্যে যে আগ্রহের সৃষ্টি হয়, মূলত তাতেই অনুপ্রাণিত হয়ে ১৯৮৯ সালে জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির পরিচালনা পরিষদ বিশ্ব জনসংখ্যা দিবসটির প্রতিষ্ঠা করে। 

 

বিশ্ব জনসংখ্যা দিবসের লক্ষ্য হলো পরিবার পরিকল্পনা, লৈঙ্গিক বৈষম্য দূর করা, দারিদ্র্য, মাতৃস্বাস্থ্য, বাল্যবিবাহ নিয়ন্ত্রণ এবং মানবাধিকারের মতো জনসংখ্যা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে জনমনে সচেতনতা সৃষ্টি করা।

 

'বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা'র মতে বিশ্বে প্রতি মিনিটে ২৫০টি শিশু জন্মগ্রহণ করে থাকে। আবার অনেকের মতে, পৃথিবীতে যে পরিমাণ সম্পদ রয়েছে তাতে সর্বোচ্চ ২০০ থেকে ৩০০ কোটি লোককের বাসস্থান দেওয়া সম্ভব। এ পরিপ্রেক্ষিতে পৃথিবীর অনেক রাষ্ট্র প্রকৃতির উপর চাপ কমাতে জনসংখ্যা বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ নিয়েছে। 

 


পূর্ব এশিয়ার দেশ চীনের জনসংখ্যা প্রায় ৪১ কোটি। ইতোমধ্যে জনসংখ্যার সমস্যায় জর্জরিত এ দেশটি এক সন্তান নীতির মাধ্যমে জনসংখ্যা বৃদ্ধি কমিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছে। ১৪ এপ্রিল ২০২১ সালে প্রকাশিত ইউএনএফপিএ’র এক প্রতিবেদন উল্লেখ আছে, বিশ্বের ৫৭ টি উন্নয়নশীল রাষ্ট্রের অর্ধেকের বেশি নারী যৌনমিলন, জন্মনিয়ন্ত্রণ এমনকি স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্যে নিজেদের মতামত প্রতিষ্ঠিত করতে পারে না। এরই ধারাবাহিকতায় কোভিড-১৯ বাস্তবতায় সারা বিশ্বে নারীর প্রতি সহিংসতা, স্বাস্থ্য সেবায় বিঘ্ন, বাল্যবিবাহ, অপরিকল্পিত গর্ভধারণ আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে গেছে। 

 

যার প্রভাব বাংলাদেশও পরিলক্ষিত হচ্ছে। বাল্যবিবাহে বাংলাদেশের অবস্থান চতুর্থ। আমাদের দেশের ৫৯ শতাংশ মেয়ের ১৮ বছরে এবং ২২ শতাংশ মেয়ের ১৫ বছরের আগেই বিয়ে হয়। কিন্তু করোনা মহামারির মধ্যে দেশে বাল্যবিবাহ বৃদ্ধি পেয়েছে ১৩ শতাংশ, যা বিগত ২৫ বছরের তুলনায় সর্বাধিক। ফলে জনসংখ্যার এই ঊর্ধ্বমুখী হার নিয়ন্ত্রণে। তৃণমূল পর্যায়ে এসকল বার্তা পৌঁছে দেওয়াই হোক আমাদের এবারের জনসংখ্যা দিবসের মূল লক্ষ্য।

/শাকিল মেহেরাজ হোসেন

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র

সম্পাদক: দিদারুল ইসলাম
প্রকাশক: আজিজুর রহমান মোল্লা
মোবাইল নাম্বার: 01711121726
Email: bartajogot24@gmail.com & info@bartajogot24.com