আজ শনিবার, ১০, ডিসেম্বর ২০২২

| কাল
০১ঃ ০৪ঃ ২৬ |

Logo
সর্বাধিক পঠিত | সর্বশেষ | গ্যালারী |

২৫ নভেম্বর স্বাচিপের সম্মেলন, নেতৃত্বের দৌড়ে এগিয়ে যারা!

নিজস্ব প্রতিবেদক:

প্রকাশ: বুধবার ২৩ নভেম্বর, ২০২২ - ১২:৪৭ পিএম

আগামী ২৫ নভেম্বর রাজধানীর ঐতিহাসিক শহীদ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত হবে আওয়ামী পন্থী চিকিৎসকদের সংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) এর পঞ্চম জাতীয় ত্রিবার্ষিক সম্মেলন। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্বাচিপ মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এমএ আজিজ স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ১৩ নভেম্বর স্বাচিপের
সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে। তখন কমিটি গঠনের দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর ছেড়ে দিয়ে ওইদিন সম্মেলন স্থগিত করা হয়। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলানকে সভাপতি ও ডা. এমএ আজিজকে মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়।

প্রতি পাঁচ বছর পরপর সংগঠনটির সম্মেলন হবার কথা থাকলেও ২০১৮ সালের নভেম্বরে মহামারী করোনা পরিস্থিতির কারণে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়নি।

স্বাচিপের সম্মেলনকে সামনে রেখে সারাদেশে চিকিৎসকদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে। শীর্ষ পদে স্থান পেতে চিকিৎসকদের অনেকেই নিয়মিত আ.লীগের প্রভাবশালী রাজনীতিবিদ ও দলীয় মন্ত্রীদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন।

সংগঠনটির বর্তমান সভাপতি পদে রয়েছেন অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান। এবারও তিনি সভাপতি পদে আসতে পারেন বলে মনে করছেন তার অনুসারীরা। পাশাপাশি সভাপতি পদের জন্য আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা ও বিএসএমএমইউয়ের সাবেক উপাচার্য নিউরোসার্জন অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়ার নাম শোনা যাচ্ছে।

মহাসচিব পদে বর্তমান মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ আগামী সংসদ নির্বাচনে ময়মনসিংহ থেকে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য এলাকায় কাজ করছেন। তাই স্বাচিপের মহাসচিব পদে নতুন কাউকে দেখা যাবে। মহাসচিব পদে সংগঠনটির নেতাকর্মীদের মাঝে বেশি আলোচনায় রয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ও স্বাচিপের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. ইউসুফ ফকির, অধ্যাপক ডা. মনিলাল আইচ লিটু, বরিশালের শেরে বাংলা মেডিক্যাল কলেজ শাখার ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং স্বাচিপের কার্যকরি কমিটির সদস্য ডা. মো: তারিক মেহেদী (পারভেজ), রংপুর মেডিকেল কলেজের ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ডা. আবু রায়হান, ডা. জামালউদ্দিন, প্রফেসর ডা. মোহাম্মদ হোসেন, ডা. শাহরিয়ার নবী শাকিল, শ্যামলী টিবি হাসপাতালের প্রকল্প পরিচালক ও দায়িত্ব প্রাপ্ত পরিচালক, অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী অধ্যাপক ডা. আবুল হাসনাত মিল্টন, ডা. জুলফিকার লেলিন, অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান মিলন।

তবে সিনিয়র এসব স্বাচিপ নেতা ছাড়াও অনেকেই শীর্ষ পদ পেতে তদবির করছেন। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত প্রধানমন্ত্রীর বলেও জানান সংগঠনের সিনিয়র নেতারা।

আসন্ন সম্মেলনের নানা বিষয় নিয়ে কথা হয় সংগঠনের একাধিক সদস্যের সাথে। সংগঠনটির একটা অংশ মনে করেন সভাপতি ও মহাসচিব এমন দু'জনকে মনোনীত করা হোক যাদের হাত ধরে চিরচেনা ঐতিহ্য ফিরবে স্বাচিপ। সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক গ্রহণযোগ্য অধ্যাপক ডা. মনিলাল আইচ লিটু ছাত্রজীবন থেকেই বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন৷ তিনি ১৯৮৮ সালে ২২ ডিসেম্বর স্বৈরাচার সরকার এরশাদের প্রথম রাজনৈতিক নির্বাচনে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে ঢাকা মেডিকেল কলেজ ছাত্র সংসদ (ঢামেসু) এর জিএস নির্বাচিত হন। এর আগে (১৯৮৬-৮৭)  তিনি সন্ধানীর সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তখন সন্ধানীর সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী ও আ.লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি। তৎকালীন স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে রয়েছে তার প্রশংসনীয় ভূমিকা। পরবর্তীতে ১৯৯৩ সালে স্বাচিপ গঠনে তিনি সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। ওই বছর ২৪ অক্টোবর স্বাচিপ গঠনের আগে বেশ কয়েকটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে ডা. মোমেনের ধানমন্ডিস্থ জেনারেল ফার্মাসিউটিক্যালস এর অফিসে প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরে অধ্যাপিকা ফিরোজা বেগমের বাসা ও অধ্যাপক ইউসুফ আলির বাসায় স্বাচিপ গঠনের প্রস্তুতিমূলক আলোচনা সভায় সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন অধ্যাপক ডা. মনিলাল আইচ লিটু। সংগঠনে তার আজীবন সদস্য নম্বর ১৭। তিনি সংগঠটির শুরু থেকে ২০১৫ পর্যন্ত কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে অত্যান্ত নিষ্ঠার সাথে তার দায়িত্ব পালন করেন।

পাশাপাশি তিনি অফিসার্স ক্লাবে ২০১০ থেকে ২০২০ পর্যন্ত পরপর পাঁচ বার নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে আ.লীগের স্বাস্থ্য খাতে সাফল্য নিয়ে একমাত্র বই (অগ্রগতি ও সাফল্যের সময় ধারা) শীর্ষক বই প্রকাশ করেন। তৎকালীন স্বাস্থ্যমন্ত্রী শেখ ফজলুল করিম সেলিম ওসমানী মিলনায়তনে বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন।

২০০২ সালে ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের "speech language pathology " স্কলারশিপ যা আ.লীগের সময়ে দেওয়া হয়েছিল বলে তা বাতিল করে তাকে দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞাসহ এয়ারপোর্ট থেকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।

জানা যায়, ব্যক্তিজীবনে অধ্যাপক ডা. মনিলাল আইচ লিটু একজন শিক্ষাবিদ ও আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একজন নাক, কান, গলা বিশেষজ্ঞ ও সার্জন। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএস ( ইএনটি এবং হেডনেক সার্জারি বিষয়ে এমএস ডিগ্রি অর্জন করেন। লন্ডনের রয়েল কলেজ থেকে এফআরসিএস, আমেরিকান কলেজ অব সার্জন থেকে এফএসিএসএস ডিগ্রি লাভ করেন। ইতিমধ্যে তার লেখা গবেষণাধর্মী বই (সেবা, সংগ্রাম ও ঐতিহ্য) এর ৪র্থ সংস্করণ প্রকাশিত হয়েছে। তার লেখা নাক, কান ও গলা বিষয়ক দুটি বই দেশ বিদেশের মেডিকেল কলেজে পড়ানো হয়। তিনি রাজনীতির পাশাপাশি সমাজসেবী হিসেবেও সুপরিচিত একজন ব্যক্তিত্ব। বৈশ্বিক মহামারী করোনা পরিস্থিতির সময় অসামান্য অবদানের জন্য বাংলাদেশ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক এম আব্দুল্লাহ এবং ডা. মনিলাল আইচ লিটু  আমেরিকাভিত্তিক রোটারি ইন্টারন্যাশন্যাল কর্তৃক প্রদত্ত কোভিড হিরো এ্যাওয়ার্ড লাভ করেন। তিনি রোটারি ডিস্ট্রিক্ট ৩২৮১ ডিস্ট্রিক্ট চেয়ার এর দায়িত্ব পালন করছেন।

অধ্যাপক ডা. মনিলাল আইচ লিটু সিলেট এম.এ.জি. ওসমানী মেডিকেল কলেজে যোগদানের পর দুর্যোগকালীন সময়ে মুখ ও বধিরদের জন্য কক্লিয়ার ইমপ্ল্যান্ট সার্জারী চালু করেন। ইতিমধ্যেই ১৭ জন মুখ ও বধির বাচ্চার কানে কক্লিয়ার ইমপ্ল্যান্ট সম্পন্ন হয়েছে।

উল্লেখ্য, ঢাকা মেডিকেল কলেজে প্রথম শাখা হিসাবে অধ্যাপক ডা. দেবেশ চন্দ্র তালুকদার ও অধ্যাপক  ডা. মনিলাল আইচ লিটু প্রধান উপদেষ্টা দায়িত্বে ১৯৯৩ সালে স্বাচিপের প্রতিষ্ঠা করেন।

সম্মেলনের মাধ্যমে কেমন নেতৃত্ব আশা করেন, এমন প্রশ্নে অধ্যাপক ডা. ইউসুফ ফকির বার্তাজগৎ২৪ কে বলেন, 'মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি অনুগত, সৎ, নিষ্ঠাবান ও কমিটেড নেতৃত্ব আসবে বলে আমি আশা করি।'

প্রফেসর ডা. মনিলাল আইচ লিটু বলেন, "political, professional, organizing capacity, commitment and honesty should be the parameter of the leadership"

ডা. তারেক মেহেদী পারভেজ বলেন, যারা বিগত সময়ে ছাত্র সংগঠনের নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলেন তাদের মধ্যে থেকেই নেতৃত্বে আসুক। তবে নেতৃত্ব নির্বাচনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত।


সর্বমোট শেয়ারঃ ১০০
Facebook Twitter WhatsApp Messanger
আমাদের অ্যাপ

স্বত্ব © ২০২২ বার্তাজগৎ২৪ Design & Developed By softicode