স্বপ্ন, আদর্শ এবং অনুপ্রেরণা

বার্তাজগৎ২৪/ এমএ
মো : লিমন আহমেদ মো : লিমন আহমেদ
প্রকাশিত: ১:২৩ পূর্বাহ্ন, ২২ অগাস্ট ২০২২ | আপডেট: ৬:৩৬ পূর্বাহ্ন, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২
ফাইল ছবি

জনসেবার এক উত্তম আদর্শ চিকিৎসা পেশা। সৃষ্টিকর্তার অশেষ কৃপায় মুখ ও দাঁতের অসুস্থতাকে পরিত্রাণ করার দায়িত্বকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করে ব্যাচেলর অব ডেন্টিস্ট্রি (বিডিএস) ডিগ্রির যাত্রা।

স্বপ্নের শুরু মায়ের ভাবনা থেকে, আমার মায়ের সাথে আমার বয়সের তফাৎ ষোল বছর। একেবারে 'পিচ্চি কিউটি -আমার। তাই হয়তো তার আজন্ম লালিত স্বপ্ন সবগুলো আমাকে দিয়ে পূরণ করার চেষ্টা করেন তিনি। আমার শিক্ষাজীবন শুরু হয় মিরপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুলে। তারপর বাবার চাকরির সুবাদে বহুবার স্কুল পরিবর্তন হয় আমার। জেএসসি পরীক্ষায় শরীয়তপুর জেলায় প্রথম স্থান অধিকার করার পর বিশাল একটা জগৎ তৈরী হয়েছে আমার। পরবর্তীতে এসএসসি এবং এইচএসসিতে আশানুরূপ ফলাফল করে এবার পেশা নির্ধারণ করার সময়। জীবনের শ্রেষ্ঠ প্রাপ্তি মা-বাবা। খুব ছোটবেলা থেকেই ছোট ছোট অর্জনে কিংবা পরীক্ষার ফলাফলে কিছুটা হলেও সন্তুষ্ট করতে পেরেছি। আমার বাবা-মা আমার কাছে সেরা। অনেকের কাছেই এমন। যাই হোক, অনেক আশা হতাশায় আজকের আমি বা ভবিষ্যতের আমিতে অধিকাংশ কৃতিত্ব আমার ১২ বছর বয়সে জেএসসি পরীক্ষার ফলাফলের পর থেকে শুরু। প্রত্যেকটা দিন প্রত্যেকটা মুহূর্ত ছিল এক একটা নতুন বাঁক। আমার শৈশবের সময় কেটেছে বিভিন্ন ক্যন্টনমেন্টে এবং নানাবাড়িতে। আমার জীবনে প্রবল আত্মবিশ্বাসের বীজবুনে দিয়েছেন আমার বাবা এবং স্বপ্ন দেখিয়েছেন আমার মা। তিনি সব সময় আমাকে সামরিক হাসপাতালের খাঁকি কালারের শাড়িতে দেখতে চান।


পেশা নির্ধারণে সাদা এপ্রোণ বেছে নিয়েছি। আজকের আমি মেডিকেল জীবনে এসে আমার বাবার মতো একজন উৎসাহদাতা পেয়েছি। প্রফেসর ডা. সালাহউদ্দিন আল আজাদ স্যার । তিনি অরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে একটা কথা বলেন,"জীবন সবার জন্য গোল্ড মেডেল রেখে দেন, শুধু জীবনের শেষ অবধি পরিশ্রম করে সেটা অর্জন করে নিতে হয়।"

স্যার, প্রতিমুহূর্ত আমাদের ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে উৎসাহ দেন এবং বলেন, "ডেন্টিস্ট্রি শুধুমাত্র একটি পেশা নয় একটি শিল্প ও বিজ্ঞান। যেখানে শুধুমাত্র দাঁত ফেলে দেয়া নয়। মুখ ও দাঁতের অভ্যন্তরে রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসা করা হয়।"সহজ ভাষায় আমাদের চোয়ালের হাড়, ঠোঁট, জিহ্বা, তালু ও মুখের স্মায়ু এবং লালা গ্রন্থি সবকিছু দন্ত চিকিৎসার অন্তর্গত। প্রেক্ষাপট পাল্টেছে, কিন্তু সমাজের কিছু অর্ধশিক্ষিত ও অশিক্ষিত মানুষেরা এখনো দন্ত্যচিকিৎসা নিয়ে ভ্রান্ত ধারনা রাখেন। এখন তাদেরকে সঠিক পথ দেখানোর সময়। মুখ ও দাঁতের চিকিৎসায় রয়েছে বিভিন্ন বিভাগ ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। মূল বিভাগগুলো হলো:
১:ওরাল ও ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারি, ২:কনজারভেটিভ ডেন্টিস্ট্রি,
৩:প্রোস্থেরডোন্টিকস,
৪:অর্থোডোন্টিকস,
৫:পেডিয়াট্রিকস
৬: পেরিওডন্টোলজি।


জীবন গঠনে ডেন্টিস্ট্রি একটি মহৎ পেশা। গতানুগতিক ধারা অনুসরণ না করে নিজের মেধা, যোগ্যতা ও আদর্শ প্রয়োগের মাধ্যমে পেশা, পরিবার, সমাজ ও দেশের প্রতি দায়িত্বশীলতার কথা বিবেচনা করে এগিয়ে চলা উচিত। যে বিষয়েই অধ্যায়ন করা হোক, ন্যায় ও সৎ পথ অনুসরণ করলে যেমনি নিজের আত্মার পরিশুদ্ধি সম্ভব তেমনি পরিবার, সমাজ এবং দেশের কল্যানে অবদান রাখাও সম্ভব। সকলের দোয়া প্রত্যাশী।
মারিয়া আফরিন বকুল
প্রথম বর্ষ, বিডিএস, মেন্ডি ডেন্টাল কলেজ।

বার্তাজগৎ২৪/ এমএ