তিস্তার পানি বিপদ সীমার ৩১ সেঃমিটার উপরে প্রবাহিত , নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

বার্তাজগৎ২৪/কেএইচ
মিজানুর রহমান: লালমনিরহাট প্রতিনিধি মিজানুর রহমান: লালমনিরহাট প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১১:০০ অপরাহ্ন, ২০ জুন ২০২২ | আপডেট: ৫:১৯ পূর্বাহ্ন, ২৮ জুন ২০২২
বার্তাজগৎ২৪

তিস্তা নদীর পানি দোয়ানী ব্যারেজ পয়েন্টে বিপদ সীমার ৩১সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। দুএকদিনের মধ্যে এই পানি সমতলে নেমে আসলে নিম্নাঞ্চলে নতুন করে বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

লালমনিরহাটে গেল রবিবার রাত থেকে তিস্তা নদীর পানি  বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীর তীরবর্তী মানুষ নির্ঘুম রাত কাটায়।

আজ সোমবার (২০জুন )সকালে হাতিবান্ধা উপজেলার দোয়ানী ব্যারেজ পয়েন্টে তিস্তার পানি রেকর্ড করা হয় বিপদ সীমার ২৮সেন্টিমিটার উপর দিয়ে,পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় রাত নয়টা নাগাদ পানির প্রবাহ (৫২ দশমিক ৯১সেন্টিমিটার) রেকর্ড করা হয়। যা বিপদ সীমার ৩১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। যার  স্বাভাবিক প্রবাহ (৫২ দশমিক ৬০সেন্টিমার)।

এদিকে তিস্তার ভাটির দিকে কাউনিয়া পয়েন্টে বিপদ সীমার ৪০সেঃ মিটার নীচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। যার  স্বাভাবিক প্রবাহ ২৯ দশমিক ২০সেন্টিমিটার ধরা হয়। বর্তমানে যার প্রবাহ ২৮ দশমিক ৮০ সেন্টিমাটার। দোয়ানী পয়েন্টের পানি সমতলে নেমে আসতে এক থেকে দুদিন সময় লাগতে পারে। অতিরিক্ত এই পানি নেমে আসলে নদী তীরবর্তী গড্ডিমারী, পাটিকাপাড়া, ডাউয়া বাড়ী, মসিষখোচা,কাকিনা,খুনিয়াগাছ,রাজপুর,  ও গোকুন্ডা ইউনিয়নে পানি বন্দি মানুষের দুর্ভোগ আরো বাড়বে এবং এতে নতুন করে বন্যার আশঙ্কা রয়েছে।

লালমনিরহাট জেলার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী  প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, গত কয়েক দিনের ভারী বর্ষনের কারনে উজানের পানি নেমে আসায় তিস্তা নদীর দোয়ানী পয়েন্টে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে,এই পানি নদী তীরবর্তী সমতলে পৌছতে সময় লাগবে। নতুন করে ভারী বর্ষন না হলে দু একদিনের মধ্যে তিস্তার পানি নেমে যাবে।

বার্তাজগৎ২৪/কেএইচ