শ্রীলঙ্কার নতুন প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমাসিংহে

বার্তাজগৎ২৪/কেএইচ
দিদারুল ইসলাম: দিদারুল ইসলাম:
প্রকাশিত: ৪:০৭ অপরাহ্ন, ২০ জুলাই ২০২২ | আপডেট: ৬:০৭ পূর্বাহ্ন, ২০ জুলাই ২০২২
ফাইল ছবি

দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপ রাষ্ট্র শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংকটে বিপর্যস্ত হয়ে নৈরাজ্য চলছে। এর মধ্যে  শ্রীলঙ্কার ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট ও ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টির (ইউএনপি) নেতা রনিল বিক্রমাসিংহে দেশটির নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। ছয়বারের প্রধানমন্ত্রী বিক্রমাসিংহেকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করেছেন দেশটির সংসদ সদস্যরা। 

আজ বুধবারের (২০ জুলাই) প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনে মোট ২১৯ ভোটের মধ্যে বিক্রমাসিংহে ১৩৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তবে এর মধ্য দিয়ে সংকট-বিধ্বস্ত দেশটিতে নতুন আরও বিক্ষোভ শুরু হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন অনেকেই।

সংসদ সদস্যদের এই রায়ের সাথে জনগণের সম্পৃক্ততা নাই বলে মন্তব্য করছেন বিশ্লেষকরা। নির্বাচিত হওয়ার পর পার্লামেন্টে দেয়া ভাষণে ‘এগিয়ে যাওয়ার পথে যাত্রা’ শুরু করার জন্য ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছেন শ্রীলঙ্কার নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট বিক্রমাসিংহে। 

এদিকে বিক্রমাসিংহের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দুল্লাস আলাহাপ্পেরুমা পেয়েছেন মাত্র ৮২ ভোট। আর বামপন্থি নেতা অনুরা দেশনায়েক শুধু নিজের দল থেকে পেয়েছেন ৩ ভোট।

শ্রীলঙ্কার ছয়বারের দায়িত্ব পালন করা এই প্রধানমন্ত্রী দেশের সংকট মোকাবিলায় অন্যান্য প্রার্থীদের পাশাপাশি বিরোধী দলকেও একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘অর্থনৈতিকভাবে দেশের অবস্থা কতটা কঠিন তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এগিয়ে যাওয়ার জন্য আমাদের নতুন কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে। এখন আমি সবাইকে আমাদের এগিয়ে যাওয়ার জন্য আলোচনা করতে একত্র হওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।’ 

বিশ্লেষকরা মনে করছেন, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিকভাবে বিপর্যস্ত শ্রীলঙ্কার ভাগ্য অনেকটাই নির্ধারণ হয়ে গেলেও নতুন প্রেসিডেন্টের প্রতি জনগণ আস্থা রাখবে কিনা সেটা এখনো বলা যাচ্ছে না।তবে জনগণ মেনে নিলে বিরোধী দলসহ মিলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করলে শ্রীলঙ্কার ভাগ্য ফিরিয়ে আনা সম্ভব হতে পারে। খবর আল-জাজিরার।

বার্তাজগৎ২৪/কেএইচ